ভুমিকম্পসহ সকল দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকার সার্বিকভাবে প্রস্তুতঃ সচেতনতা সেমিনারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের উদ্যোগে জিপিএইচ গ্রুপ ও ক্রাউন সিমেন্টের পৃষ্ঠপোষকতায় “ ভূমিকম্পের আঘাত, প্রস্তুতি ও করণীয়ঃ প্রেক্ষাপট বাংলাদেশ” শীর্ষক সচেতনতা, মতবিনিময় ও কৌশল অবলম্বনমূলক সেমিনার সম্প্রতি ঢাকাস্থ কৃষিবীদ ইন্সটিটিউটে অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারের উদ্বোধন ও প্রধান অতিথির বক্তব্য দিতে গিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী জনাব আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি বলেন ভূমিকম্প ঝুঁকি মোকাবেলা ও ক্ষয়ক্ষতি প্রশমনে বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের কার্যক্রম অত্যন্ত প্রশংসনীয়। সম্প্রতি নেপালে সংঘটিত ভূমিকম্প দুর্যোগের প্রেক্ষাপটে তিনি সরকার কর্তৃক ভূমিকম্প দুর্যোগ মোকাবেলায় গৃহীত বিভিন্ন কর্মকান্ডের কথা উল্লেখ করেন। পাশাপাশি জাইকা, কয়েকা, জিআইজেড, ওয়ার্ল্ড ব্যাংক প্রভৃতি উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার সহযোগীতার জন্য কৃতজ্ঞতা ব্যক্ত করেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের  মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আলী আহাম্মেদ খান, পিএসসি।

 এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন যথাক্রমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মোঃ মোজাম্মেল হক খান, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সত্যব্রত সাহা, এবং ক্রাউন সিমেন্টের চেয়ারম্যান জনাব মোহাম্মাদ জাহাঙ্গীর আলম । তাদের অভিমত হচ্ছে ভূমিকম্প দুর্যোগ মোকাবেলায় জনমত ও সামাজিক আন্দোলন সৃষ্টি, মানুষের অধিকার ও দায়িত্ববোধ জাগ্রত করাসহ সংশ্লিষ্ট সকল ভূমিকা পালনকারী কর্তৃপক্ষের পারস্পরিক সহযোগীতা ও সমন্বয়ের মাধ্যমে টেকসই কার্যক্রম গ্রহন করা জরুরী। উক্ত সেমিনারের প্রধান পৃষ্ঠপোষক এবং বিশেষ অতিথি ক্রাউন সিমেন্ট ও জিপিএইচ গ্রুপ এর চেয়ারম্যান জনাব মোহাম্মাদ জাহাঙ্গীর আলম তার বক্তব্যে ভূমিকম্প ঝুঁকি মোকাবেলা এবং ক্ষয়ক্ষতি উপশমে সঠিক স্থাপত্য পরিকল্পনা ও গুণগত মান সম্পন্ন নির্মাণ সামগ্রীর ব্যবহার নিশ্চিতকরণ ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ করেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ শাহ কামাল। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স পরিচালক লেঃ কর্ণেল মোহম্মদ মোশারফ হুসেন, পিএসসি সেমিনারের সার্বিক সমন্বয় করেন।

দিনব্যাপি অনুষ্ঠিত সেমিনারে ব্যাপক আলোচনা পর্যালোচনার পর অভিমত ব্যক্ত করা হয় যে, বিদ্যমান ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ও স্থাপনাসমূহ রেট্রোফিটিং এর মাধ্যমে ভূমিকম্প সহনীয় বা টেকসই করা সম্ভব। এ লক্ষ্যে নিয়মিত গণসংযোগ, মহড়া ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা, ঢাকা শহরের ভূমিকম্প দুর্যোগ মোকাবেলায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর আর্থকোয়াক কন্টিজেনসি প্লান তৈরি করা হয়েছে।  সম্প্রতি চীন সরকার বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স কে প্রয়োজনীয় উদ্ধার যন্ত্রপাতি অনুদান হিসেবে সরবরাহ করেছে। এ লক্ষ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়াধীন কমপ্রেহেনসিভ ডিসেস্টার ম্যানেজমেন্ট প্রোগ্রাম সহায়তায় সারা দেশে ৬২,০০০ আরবান ভলান্টিয়ার গড়ে তোলার লক্ষ্যমাত্রায় ইতোমধ্যে ৩২,০০০ এর অধিক ভলান্টিয়ারকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে যারা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স কর্মীদের সংগে সহযোগী শক্তি হিসেবে কাজ করছে। বর্তমান সরকারের আন্তরিকতায় অধিদপ্তরের উন্নয়নের জন্য ২০০ কোটি টাকার উদ্ধার যন্ত্রপাতি ক্রয় প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। পাশাপাশি কর্মীদের পেশাগত জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য দেশে-বিদেশে উচ্চতর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।  

EVENTS & PUBLICATIONS

Website Design & Hosting for GPH Ispat is provided by alpha.net.bd